অনলাইনে কাজ বা অনলাইন ফ্রিল্যান্সিং বলতে মূলত বোঝায় কোন একজন ব্যক্তি তার দক্ষতা অনুযায়ী স্বাধীন ভাবে (সমাজে প্রচলিত ধারার কাজের পরিবর্তে) যে কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে সেই কাজগুলোকে। অনলাইন ফ্রিল্যান্সিং কে একটি বড় বটগাছ এর সাথে তুলনা করা যেতে পারে, যেখানে এক একটি দক্ষতা সেই বটগাছের এক-একটি শাখা হিসেবে বিবেচ্য। যারা এই পেশার সাথে নিয়োজিত তাদেরকে আমরা ফ্রিল্যান্সার বলে থাকি। সংক্ষেপে বলা যায় স্বতন্ত্র বা মুক্ত পেশাজীবী।

আমি ইতিমধ্যেই উল্লেখ করেছি ফ্রিল্যান্সিং একটি বটগাছের মত আর এতে কর্মক্ষেত্র গুলোও সুবিশাল। ওয়েবসাইট ডিজাইন, গ্রাফিক্স ডিজাইন, ডিজিটাল মার্কেটিং, বুক কিপিং এন্ড একাউন্টিং, সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট, আর্টিকেল রাইটিং বর্তমানের খুবই জনপ্রিয় দক্ষতা সমূহের কিছু যার মাধ্যমে ফ্রিল্যান্সিং খাত থেকে আয় করা সম্ভব। বর্তমানে দেশে বহু ফ্রিল্যান্সার এই সকল কাজের মাধ্যমে বিপুল বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করছে। শুধু যে এগুলোই ফ্রিল্যান্সিংয়ের কর্মক্ষেত্র তা নয়, এছাড়াও আরো অনেক অনেক দক্ষতা বা স্কিলস আছে। প্রচলিত কর্মক্ষেত্রে যেসকল কাজ পাওয়া যায় তার সিংহভাগই অনলাইনেও পাওয়া সম্ভব। আর তাইতো ফ্রিল্যান্সিং করতে কোন একক শিক্ষাগত যোগ্যতার দরকার পরে না। অনেকের ধারণা শুধুমাত্র যারা কম্পিউটারের উপরে পড়াশোনা করে তারায় ফ্রিল্যান্সিং করতে পারবে, অন্যরা পারবে না! এটি ভুল ধারণা। এখানে মুখ্য হচ্ছে দক্ষতা। যে যে বিষয়ের উপরে দক্ষ সে সেই দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে এই সেক্টরে তার অবস্থান শক্ত করতে পারে। উদাহরণস্বরূপ বলা যেতে পারে, একজন ইংরেজিতে দক্ষ ব্যক্তি তার ইংরেজি দক্ষতা কে কাজে লাগিয়ে আর্টিকেল রাইটিং, ঘোস্ট রাইটিং, প্রুফ রিডিং সহ আরো অন্যান্য সম্বন্ধিত কাজ গুলোর মাধ্যমে অনলাইনে আয় করতে পারেন।